সেলিব্রিটিদের মতো ব্রান্ডেড কোম্পানীর র্কোট–প্যান্ট পরুন, আর আপনার বিজনেস ছড়িয়ে দিন গোটা দেশে।

Safe shop
SAFE SHOP

SAFE SHOP
মোটামুটি আমাদের সকলেরই এই কথা জানা যে, বিভিন্ন নামীদামী সেলিব্রিটি থেকে শুরু করে বিজনেস মেন এবং বিভিন্ন চাকুরীজীবি ব্যাক্তি সকলেরই কিছু পার্সোনালিটি লক্ষ্য করা যায়।

   সেই সমস্ত ব্যাক্তিদের ড্রেস পোশাকের পছন্দের তালিকা এতটায় আর্কষোনীয় যে প্রত্যেকেরি একটা স্বপ্ন থাকে তাদের মতো পোশাক পরার।
সেই রকমি একটা পোশাক হচ্ছে  ব্রান্ডেড কোম্পানীর র্কোট–প্যান্টের সেট। অবশ্য তার সঙ্গে চাই ম্যাচিং করা র্শাট, টা–ই, বুট এবং সুন্দর দেখে একটা ব্রান্ডেড কোম্পানীর ঘড়ি তো থাাকছেই।

     আপনিও নিশ্চয় ভেবেছেন কোনো একটা সময় এই রকমি পোশাক পরে সবার সামনে নীজেকে প্রেজেন্ট করবেন। নীজের বন্ধুদের সামনে, আত্মীয়দের সামনে নীজেকে একটু অন্যরকমভাবে তুলে ধরার আনন্দটাই আলাদা।

    কিন্তু এই রকম কোম্পানীর ( যেমন— Vimal, Ray Mond ইত্যাদি ইত্যাদি) র্কোট–প্যান্টের সেট বাজার থেকে কিনতে গেলেই আমাদের পাঁচ সাতবার ভাবতে হয়। কারণ এর জন্য ব্যয় হয় 10–12 হাজার টাকা, ভালো শপিংমলে কিনতে গেলে মূল্য দিতে হয় এর চাইতেও বেশী অংকের টাকা। কিনে নিলেও অনেক সময় আমরা অরিজিনাল কোম্পানীর জায়গায় হাতে পায় লো–কোয়ালিটির প্রোডাক্ট। তাই এই সব কথা চিন্তা করেই আমাদের ইচ্ছে থাকা সত্বেও কিনিনা অথবা কিনতে পারিনা। কিন্তু………

Screenshot_2020-01-09-23-53-19_20200110005412442
Safe shop

কিন্তু, আমি যদি বলি অরিজিনাল কোম্পানীর Vimal, RayMond ইত্যাদি প্রোডাক্ট পাবেন আপনারা 4–5 হাজারের মধ্যে, শুধু তাই নয় সাথে পাবেন বিজনেস করার সুন্দর একটি আইডিয়া। হ্যাঁ বন্ধুরা, অবাক হলেও সত্যি এ কথা, শুধু দরকার আপনার ইচ্ছে।

Safe Shop দিচ্ছে এই রকমই একটা বিজনেসের প্লাটফর্ম, যে কোনো নামীদামী ব্রান্ডেড কোম্পানীর প্রোডাক্ট ডাইরেক্ট সেলের মাধ্যমে।       মানে এখানে কোনো দোকান খুলে অর্থাৎ পাইকারি বিক্রেতা এবং খুচরো বিক্রেতার কোনো ভুমিকা নেই। তাছাড়া প্রোডাক্ট পাড়ায় পাড়ায় ঘুরে ঘুরে বিক্রি করারও কোনো ব্যাপার নেই।

শুধু কথোপকথোনের মাধ্যমে যে কোনো ব্রান্ডেড প্রোডাক্ট ডাইরেক্ট কোম্পানী থেকে কাষ্টমারের হাতে তুলে দেওয়া এবং নীজের কমিশন বুঝে নেওয়া। আর এই সব প্রক্রিয়া হবে অফলাইনে সুতরাং প্রতারিত হওয়ার কোনো ভয় থাকেনা এখানে।

stock-designs-water-droplets-pattern-pink-41666-p[ekm]600x600[ekm]_20200110005047015
SAFE SHOP

হ্যাঁ বন্ধুরা Safe Shop থেকে Vimal, RayMond এর মতো বড়ো বড়ো কোম্পানীর প্রোডাক্ট 4–5 হাজারের মধ্যে কিনে ব্যাবহার করবেন।     সে ক্ষেত্রে এমনটা হতেই পারে যে– আপনি যেটা পরে আছেন সেই প্রোডাক্টটা দেখে অনেকের পছন্দ হয়েছে।

আপনার এই প্রোডাক্ট দেখে যদি আপনার পরিচিত 2 জন কেউ Safe Shop থেকে শপিং করেন, তবে সেই দুজনের কেনাকাটায় আপনি পেয়ে যাবেন মোটা অংকের কমিশন, চেকের মাধ্যমে।

শুধু তাই নয় ওই দুইজনের থ্রু দিয়ে যতজন Safe Shop এ শপিং করবেন, প্রত্যেকের কেনাকাটায় সেই দুইজন সহ আপনার ইনকান হতে থাকবে। এই ভাবে আপনার টিম বা গ্রুপ যত দিন যাবে ততই বড় হবে আর আপনার ইনকাম হতেই থাকবে।

হ্যাঁ বন্ধুরা, একটা সময় আপনি কাজ না করলেও আপনার টিম–ই কাজ করে আপনার টিম বড়ো করবে আর আপনার ইনকাম দিন দিন হতেই থাকবে।

বেকারত্বের হার কমাতে এবং পিছিয়ে পড়া মানুষের কথা মাথায় রেখেই Safe Shop এর মতো বড়ো কোম্পানীর এই উদ্বেগ।

বিষদ: জানতে ইউটিউব ভিডিও ফলো করতে পারেন Safe Shop সম্বন্ধে।

আপনার যদি মনে হয় এই কাজটা আপনার জন্য, তবে আমাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন বিস্তারিত জানার জন্য, নীচে কমেন্ট বক্সে গিয়ে আমাদের কমেন্ট করুন,

আমরা রয়েছি সকল সময় আপনার পাশে সততার সাথে, সম্পুর্ণ ফ্রীতে।

ধন্যবাদ বন্ধুরা।

আর কতদিন অন্যের কাছে কাজ করবো?আমি নীজের ব্যাবসা করতে চাই।

Screenshot_2020-01-06-00-08-38     উউফ….., আমি আর পারছি না সহ্য করতে এত চাপ। ঘুরে বেড়িয়ে যদি ইনকাম করতে পারতাম তাহলে কতই না ভালো  হত।  আর কত দিন….. আর কত দিন এভাবে চলবে, আর কত দিন? এত কাজ করছি, তবুও সেই নানান ধরনের কথাই শুনতে হচ্ছে মালিকের কাছে, ছিঃ..।

পাচ্ছিতো সেই মাসের শেষে এই কটা টাকা মাইনে, এত কাজ করে মাইনের থেকে খারাপ ব্যবহার টায় পাচ্ছি বেশী।

আমার বয়স যখন 18, বাবা বলেছিলেন ভালো চাকরি করে জীবনে প্রতিষ্ঠিত হয়ও।    এখন বয়স আমার 28+, ভালো চাকরিতো করছি বাবা, কিন্তু ভালো মাইনে পাচ্ছি কোথায়?বয়সটা তো দিন দিন বেড়েই চলেছে, মাইনে বাড়ছে না কেনো বাবা? 

8 – 10 ঘন্টা লোকের কাছে রক্ত জল করে পরিশ্রম করছি, সেই মাইনে সংসারের টুকিটাকি খরচাতেই ফুরুত হয়ে যায়। দু পয়সা জমিয়ে নীজের ভালো ব্যাবসা দাঁড় করাবো সেটার ও পর্যন্ত উপায় নেইকো।    শখের কথা  না হয় বাদই দিলাম।  

স্কুল, কলেজের এমনকি পারার সমবয়সী বন্ধুরা বেশ মোটা টাকা ইনকাম করছে, বাড়ি  গাড়ি  শখ  স্বপ্ন সমস্ত কিছু পূরণ করছে কীভাবে বাবা?   

বাবা: ওরা সকলেই  ” SAFE SHOP ”  ইন্ডাস্ট্রিতে  কাজ করছে, সুতরাং এখান থেকে লাখ লাখ টাকা ইনকাম করা স্বাভাবিক।  

ছেলে:  বাবা এই  ” SAFE SHOP ”  ইন্ডাস্ট্রি আবার কি?

বাবা: শোনো তবে, এই ইন্ডাস্ট্রি দেশের বিভিন্ন নামি দামী ব্রান্ডেড কোম্পানির  প্রডাক্ট ডাইরেক্ট কাষ্টমারদের হাতে  পৌঁছে দেয়ার কাজ করে থাকে।  P41FXT_20200106024113027

সুতরাং এখানে পাইকারি বিক্রেতা এবং খুচরো বিক্রেতার   কোনো ঝামেলায় থাকে না।    তাই বলে এর জন্য কোনো দোকান খোলার বা প্রডাক্ট সঙ্গে করে নিয়ে পড়ায় পাড়ায় ঘুরে বিক্রি করার ব্যাপার না।   

     শুধু প্রয়োজন, দুটো প্রধান কাজ।  ব্যাস তাঁরপর তোমারও মোটা টাকা ইনকাম এবং শেষে বসে বসে ইনকাম। 

pixlr_20200106225900679

     1. প্রথমে নীজে  4– 6 হাজারের যেকোনো একটা প্রডাক্ট কিনে নীজের নামে একটা   ID  চালু করা। 

2. এবং দ্বিতীয়ত এই একই ফরমুলাই তোমার পরিচিত  2 জন কোনো ব্যাক্তিকে বলো প্রয়োজনীয় কোনো প্রডাক্ট                       ” SAFE  SHOP ” থেকে কিনতে।   

   এবং তোমার পরিচিত সেই 2 জন আরও 2 জনকে কিনতে বলবে। সেই 2 জন আরও 2 জনকে….. 

   এই ভাবে তোমার টিম বা গ্রুপ বাড়তেই থাকবে  এবং তোমার গ্রুপে যত প্রডাক্ট সেল বা বিক্রি হবে ততই তোমার ইনকাম বাড়তেই থাকবে, এরপর তোমাকে  আর পরিশ্রম করা লাগবে না।

   এই কাজগুলো যারা করে থাকেন তাঁরা  প্রডাক্ট ভিত্তিক ভালো  অর্থ উপার্জন করে থাকেন।

ছেলে: আমাকে এখুনি 4 হাজার টাকা দাওনা বাবা                “SAFE SHOP ”  থেকে একটা ID খুুুলে আসি।

    শিবু আর আব্দুল্লাহ্কেও সাথে নিয়ে যাচ্ছি, ওরাও ID খুলবে।।।।  

 বন্ধুরা,  আপনি যদি ফ্যামিলি কিংবা বন্ধুদের সাথে ছুটি এনজয় করেন তবুও আপনার টিম বা গ্রুপ কাজ করবে এবং আপনার ইনকাম হতে থাকবে। 

  আরও জানতে YouTube–এ  SAFE  SHOP  লিখে সার্চ করুন, ওখানে সকল খুঁটিনাটি বিষয় পেয়ে যাবেন  আপনারা।

 তো বন্ধুরা,  আপনারা যদি  SAFE SHOP –এ কাজ করতে চান তাও আবার কোনো রকম পরিশ্রম না করে, নীজের মেন কাজটা বজায় রেখে , তবে সত্তর আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন নীচের কমেন্ট বক্সে গিয়ে কমেন্ট করুন।

 আমরা সবসময় আপনার পাশে রয়েছি।        

Screenshot_2020-01-06-00-17-46_20200106025131734

 

বেদের ‘পরমেশ্বর’ আর কুরানের ‘আল্লাহ্’ দুটো নামই কি একজনের–ই?

বেদের পরমেশ্বর–ই হচ্ছেন কুরানের আল্লাহ্,হ্যাঁ বন্ধুরা কথাটা শুনতে অবাক মনে হলেও ঠিক এমনটাই বলছেন অনেক গবেষক।

বেদে বলা হয়েছে: পরমেশ্বর একজন উনার কোনো মুর্তি নেই, কোনো ছবি নেই, কোনো ভাস্কর্য নেই, কোনো প্রতিমা নেই। একই জিনিস আমাদের বোঝাতে চাইছে বাইবেল ।

বাইবেলে বলা হয়েছে: আমি নীজের থেকে কিছুই করতে পারিনা,যা কিছু করি সবই আমার প্রভুর ইচ্ছায়।
ঠিক একই ধরনের কথা বলা হয়েছে কুরানে।

কুরানে বলা হয়েছে: আল্লাহ্ একজন এবং অদ্বিতীয়। তিনি কখনও জন্ম নেননি কাওকে জন্মও দেননি। উনার সমতুল্য কোনো কিছুই নেই।

হ্যাঁ বন্ধুরা অনেকের কাছে নতুন মনে হলেও ব্যাপার বিশ্বাস করেন অনেকেই। তাঁদের দাবি পৃথিবী, চাঁদ,সূর্য, আকাশ–জমিন, বিশাল জলভাগ, গাছপালা, উদ্ভিদ
–প্রানী, বিশ্বব্রহ্মাণ্ড, যাবতীয় যা সৃষ্টি করেছেন একজন–ই। উনাকে কেউ পরমেশ্বর কেউ প্রভু আর কেউবা আল্লাহ্ বলে ডেকে থাকেন

Click & Visit Here মজাদার কমেন্ট Youtube Channel

আমাদের ওয়েবসাইট–এ আসার জন্য আপনাকে আন্তরিক অভিনন্দন।